আজকের ট্রেন্ডিং

আসন্ন আইসিসি টি20 বিশ্বকাপ ২০২১ সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী: সফলভাবে ইভেন্ট পরিচালনার জন্য আইসিসিকে নির্দেশনা দেবে বিএসএজি

কোভিড-19 মহামারি শুরুর পর এই প্রথম কোন বৈশ্বিক আসর আয়োজন করতে চলেছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে শুরু হতে চলেছে ১৬ দলের আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২১। ভারতে কোভিড-19 সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে আরব আমিরাত এবং ওমানে এবারের বিশ্বকাপ স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

প্রথম রাউন্ডের ম্যাচগুলো হবে ওমানে। পরে সুপার ১২ ও নকআউট পর্বের ম্যাচ হবে আমিরাতে। দেশটির প্রায় ৯৪ শতাংশ মানুষ কোভিড-19 এর প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন। তবু ১৬ দেশের অংশগ্রহণে চার ভেন্যুতে বিশ্বকাপ আয়োজন খুবই জটিল একটি প্রক্রিয়া হিসেবেই মানছেন আইসিসির বায়ো সেফটি বিভাগের প্রধান অ্যালেক্স মার্শাল।

কেননা মাসব্যাপী চলা এই আসরে কোভিড-19 সংক্রান্ত নানান সমস্যাই দেখা যেতে পারে। সেসব বিষয়ে আইসিসি কী পদক্ষেপ নিতে পারে তা পরিষ্কার করে জানিয়েছেন মার্শাল। বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিবৃতিতে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলো নিচে তুলে ধরা হলো:  

বায়ো বাবলের মধ্যে কেউ করোনা পজিটিভ হলে কী হবে?

কেউ যদি বায়ো বাবলের মধ্যে পজিটিভ হয় তবে তাকে ১০ দিনের আইসোলেশনে থাকতে হবে।

যারা কাছাকাছি সংস্পর্শে থাকাবে তাদের কী করা হবে?

যে ব্যক্তিরা সংক্রমিত ব্যক্তির সাথে ২ মিটারের কম দূরত্বে এবং মাস্ক ছাড়া কমপক্ষে ১৫ মিনিট এবং ৪৮ ঘন্টা পরীক্ষা/উপসর্গের জন্য ছিল তাদেরকে কাছাকাছি সংস্পর্শে থাকা হিসেবে বিবেচনা করা হবে। এই ধরনের লোকদের ৬ দিন আইসোলেশনে থাকতে হয়। এছাড়াও, যদি কেউ মাস্ক পরিধান করে সংক্রমিত ব্যক্তির সাথে শারীরিক সংস্পর্শে থাকে, তাহলে সেই ব্যক্তিকে ২৪ ঘন্টা আইসোলেশনে থাকতে হবে।

বিপরীত পক্ষের কোনো খেলোয়াড় পজিটিভ হওয়ায় তার দরুণ যদি কোনো দল মাঠে নামতে না চায় বা খেলার ব্যাপারে চিন্তীত হয়, সেক্ষেত্রে কি হবে?

একটি বায়োসেফটি অ্যাডভাইজরি গ্রুপ (বিএসএজি) এই ধরনের পরিস্থিতিতে কাজ করবে। তারা অংশগ্রহণকারীদের সকল উদ্বেগ দূর করতে এবং ঝুঁকির মাত্রা ব্যাখ্যা করতে সাহায্য করবে। তাছাড়া খোলা মাঠে ক্রিকেট খেললে তা অন্যান্য খেলোয়াড়দের জন্য খুব কম ঝুঁকিপূর্ণ হবে সে সম্পর্কে তাঁরা অবগত করবে। 

নিরাপদে অনুষ্ঠিত করার জন্য ইভেন্টটি, আইসিসি এবং বিএসএজি দ্বারা পরিচালিত করা হবে। পুরো ইভেন্ট জুড়ে, সকল ধরণের কোভিড-১৯ সমস্যার সঠিকভাবে মোকাবেলা করার জন্য তাঁরা প্রতিদিন সভা করবে এবং বিশেষজ্ঞদের বৈজ্ঞানিক ও চিকিৎসা নির্দেশনার সাহায্য নিবে। নিয়ন্ত্রক পরিবেশ বা মহামারীর স্থিতির কোন উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন হলে, এবং সেইসাথে ইভেন্টের উপর তাঁর কোন প্রভাব পড়লে তা মূল্যায়ন করা হবে এবং কোভিড রেসপন্স গ্রুপকে সুপারিশ করা হবে।

যেকোনো স্ক্যান অথবা চিকিৎসার জন্য কোনো খেলোয়াড়কে বায়ো বাবল ছাড়তে হলে কী করতে হবে?

খেলোয়াড়দের এমন সব পরিস্থিতির জন্য সুনির্দিষ্ট বায়ো সিকিউর হাসপাতাল ও বিস্তারিত প্রটোকল রাখা হয়েছে। যাতে করে বাবলের নিরাপত্তা এবং খেলোয়াড়দের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করা যায়।

কেউ বায়ো বাবলের নিয়মকানুন ভঙ্গ করলে কী হবে?

এ বিষয়ে কোনো স্পষ্ট কোন গাইডলাইন দেয়া হয়নি এখনও। তবে জানানো হয়েছে প্রতিটি টিম ম্যানেজম্যান্টকে এ বিষয়টি অনেক গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে। তবে অ্যালেক্স মার্শাল আশাবাদী, কোনো দলের কোনো খেলোয়াড় বায়ো বাবলের নিরাপত্তা নষ্ট করবেন না।

টুর্নামেন্টের বায়ো বাবলে কি খেলোয়াড়দের পরিবারও থাকতে পারবে?

পরিবারের ন্যুনতম সংখ্যক সদস্যরা থাকতে পারবেন। তবে তাদের প্রত্যেককে পূর্ণাঙ্গ বায়ো বাবল প্রটোকল মেনে চলতে হবে।

বিশ্বকাপের দর্শকদের কি দুই ডোজ টিকা নেয়া থাকতে হবে?

ওমান ও আবুধাবিতে মাঠে বসে খেলা দেখার জন্য দুই ডোজ ভ্যাকসিন নেয়া থাকতে হবে কিন্তু দুবাই এবং শারজার জন্য তা লাগবে না। সকলকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। খেলোয়াড়দের সঙ্গে কোনো প্রকার যোগাযোগ করতে পারবেন না দর্শকরা।

আসছে টি20 ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় আসর। এর আরো সকল আপডেটের জন্য, Baji –র সাথেই থাকুন!

আরো আজকের ট্রেন্ডিং